চাকরি

সিইও হওয়ার যোগ্যতা ও গাইডলাইন

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বা সিইও অনেকের কাছে একটা স্বপ্নের নাম। কারণ একজন সিইও একটা প্রতিষ্ঠান অথবা সংস্থাকে একাই নিয়ন্ত্রণ করে। একাই সবকিছু পরিচালনা করা তো আর চাট্টিখানি কথা না। তাকে অবশ্যই বিভিন্ন গুণে ও কর্মদক্ষতায় নিজের সিইও হওয়ার যোগ্যতা প্রমাণ করতে হয়। বিভিন্ন গুণ, দক্ষতা সহ আরো অনেক কিছু জানা প্রয়োজন হয়। সিইও হতে নিজেকে কিভাবে প্রস্তুত করতে হবে তার পরিপূর্ণ গাইডলাইন এই আর্টিকেলে জানতে পারবেন।

সিইও হওয়ার যোগ্যতা অর্জনের জন্য কী ধরনের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন?

একজন সিইও বা প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কলেজ শিক্ষার পাশাপাশি সিইও হওয়ার জন্য যোগ্য হয়ে উঠতে গুরুত্বপূর্ণ কিছু অভিজ্ঞতা থাকে। অনেক সিইওর ব্যবসায় বা ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি থাকে, অন্যদের কম্পিউটার সংস্থা যেমন কম্পিউটার বিজ্ঞান বা পাবলিক পলিসির ক্ষেত্রে ডিগ্রি থাকে। কোনও সংস্থার প্রথম প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রায়শই প্রতিষ্ঠাতা হন এবং এই ক্ষেত্রে সিইও হওয়ার জন্য আপনার ক্ষেত্রে দক্ষতা থাকা উচিত, আপনার সংস্থার জন্য একটি দৃষ্টিভঙ্গি এবং কিছু ব্যবসায়ী জ্ঞান থাকতে হবে।

বড় সংস্থাগুলো যারা একজন নতুন সিইও নিয়োগের সন্ধান করে তারা সাধারণত পরিচালনার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রার্থীদের এবং প্রায়শই ব্যবসায় প্রশাসনের ডিগ্রি (এমবিএ) স্নাতক প্রার্থীদের পছন্দ করেন। সব ধরণের ব্যাচেলর ডিগ্রিধারী শিক্ষার্থীরা এমবিএ প্রোগ্রাম করতে পারে এবং ম্যানেজমেন্ট রোলসের অভিজ্ঞতা থাকা আবেদনকারীদের অগ্রাধিকার বেশি থাকে। এমবিএ প্রোগ্রামের শিক্ষার্থীরা টিম ওয়ার্ক, নেতৃত্ব,বিপণন, অপারেশন ম্যানেজমেন্ট, মাইক্রোকোনমিক্স, কর্পোরেট ফিন্যান্স, অ্যাকাউন্টিং,ম্যানেজরিয়াল পরিসংখ্যান এবং ব্যবসায়ের নীতিশাস্ত্রের কোর্স গ্রহণ করে।

এমবিএ প্রোগ্রামের মূল পাঠ্যক্রমটি শেষ করার পরে শিক্ষার্থীরা তাদের আগ্রহের বিবেচনায় পরামর্শ, স্বাস্থ্যেসেবা, আর্থিক পরিষেবাগুলো বা উদ্যোক্তাদের মতো ক্ষেত্র গ্রহণ করে। ব্যবহারিক অভিজ্ঞতা বেশিরভাগ এমবিএ প্রোগ্রামগুলোর আরেকটি ফোকাস বিষয় এবং শিক্ষার্থীরা ব্যবসায়িক ধারণা এবং রিয়েল সংস্থাগুলোতে সম্পূর্ণ ইন্টার্নশিপের সুযোগ পায়।
কিছু শিক্ষার্থী তাদের এমবিএ তে ফুল-টাইম স্ট্যাটাসে কাজ করে , তবে অন্যরা যাদের বর্তমানে চাকুরী রয়েছে তারা এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামগুলো করেন। এক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রামের শিক্ষার্থীরা খণ্ডকালীন ক্লাস করে এবং কর্মক্ষেত্রের কাজের বিষয়ে পড়তে তারা অধিক আগ্রহী হয়।

কোন প্রশংসাপত্র বা লাইসেন্স এর প্রয়োজনীয়তা আছে?

সিইওদের সংস্থাগুলো তাদের আইন বাধ্যবাধকতায় মেনে চলছে কিনা অবশ্যই তা নিশ্চিত করতে হবে। তবে সিইও জবকে নিজেই সরকার-অনুমোদিত লাইসেন্সের প্রয়োজন নেই।
তবে কোনও ম্যানেজারের উচ্চ স্তরের ব্যবসায়িক জ্ঞানের জন্য কিছু কোর্স সম্পূর্ণ করা এবং পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার প্রয়োজন পড়ে।

সিইও হতে কত সময় লাগে?

সিইও হতে অনেক বছর লেগে যায়। যারা নুতন ব্যবসা শুরু করেন তারা নিজেকে সিইও হিসেবে দাড় করাতে পারেন। তবে বিভিন্ন সংস্থাগুলোতে সিইও পদ পেতে চাইলে শিক্ষা এবং সিইও হওয়ার যোগ্যতা অর্জনের জন্য বছরের পর বছর কাটাতে হয়। কেউ কেউ যে সংস্থায় কাজ করেন সেখানে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হওয়ার জন্য বিভিন্ন ম্যানেজমেন্টের পদে পদে পদস্থ হন, আবার অন্যরা অন্য কোথাও পরিচালনার অভিজ্ঞতা অর্জন করেন এবং তাদেরকে একটি নতুন সংস্থা তাদেরকে নিয়োগ করে।

একজন সিইও কত উপার্জন করতে পারে?

কোম্পানি ভেদে মাসিক বেতন কমবেশি হয়ে থাকে। তবে যেকোনা কোম্পানিতে প্রাথমিক বেতন ৩০-৪৫ হাজার মতো হয়। অভিজ্ঞতা বাড়ার সাথে সাথে চাকরির বেতনও বাড়তে থাকে। বড় বহুজাতিক কর্পোরেশনের সিইও ছোট সংস্থার তুলনায় অনেক বেশি আয় করতে পারে।

চাকরির সম্ভাবনা কী?

কোম্পানির ভাল মন্দ দেখভাল করাই মূলত একজন প্রধান নির্বাহীর মূল কাজ। দক্ষ সিইও কোম্পানির ক্ষতির পরিমাণ কমাতে পারে। তাই ছোট বড় সব সংস্থারই দক্ষ সিইওর প্রয়োজন পড়ে। সিইও পদের জন্য প্রতিযোগিতা তীব্র হয়ে থাকে এবং এসব ভাল মানের কোম্পানিতে যোগ্য আবেদনকারী আবেদন করে।

সিইওর জন্য দীর্ঘমেয়াদী ক্যারিয়ারের সম্ভাবনাগুলো কী কী?

মেধাবী সিইও অনেক বছর ধরে নির্দিষ্ট কোনো সংস্থায় সফলতার সর্বোচ্চ চূড়ায় সভাপতিত্ব করতে পারেন। তবে যারা একই সংস্থার সাধে থাকতে চায় না তারা বড় সংস্থায় সহজেই সিইও পদ পেতে পারেন।

আমি সিইও হিসাবে কীভাবে চাকরি পেতে পারি?

ম্যানেজমেন্টে কাজ সন্ধান করা নেটওয়ার্কিংয়ের উপর অনেক বেশি নির্ভর করে। এমবিএ গ্র্যাজুয়েটরা প্রায়শই তাদের প্রাক্তনদের সাথে নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সাথে যুক্ত থাকে। এই কারণে, ব্যবসার ক্ষেত্রে চাকরি পেতে তেমন বেগ পেতে হয় না।
কোনও বিজনেস স্কুলের প্রাক্তন নেটয়ার্কের শক্তি কোনও প্রোগ্রাম বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে সম্ভাব্য এমবিএ শিক্ষার্থীদের বিবেচনা করার অন্যতম কারণ।
তবে আপনি যদি নিজে ব্যবসা শুরু না করেন তাহলে আপনি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করবেন না। আপনার দক্ষতার ক্ষেত্রে পরিচালনা পজিশনগুলো দিয়ে শুরু করুন এবং অভিজ্ঞতা অর্জন এবং একটি শক্তিশালী পেশাদার নেটওয়ার্ক তৈরি করার সাথে সাথে আপনার বর্তমান কর্মস্থলে বা অন্য কোনও জায়গায় আপনার সিইও হওয়ার সুযোগ থাকতে পারে।

আমি সিইও হওয়ার বিষয়ে আরও কীভাবে জানতে পারি?

এন্ট্রি লেভেল থেকে অ্যাডভান্সড লেভেলে সিইও হতে আপনাকে সিইও হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে অনেক বছর কাজ করে ও ভাল পারফর্মেন্স দিয়ে। এছারা নেটওয়ার্কিং বাড়াতে হবে। জানার পরিধি বাড়াতে হবে। বিশেষ করে প্রচুর বই পড়তে হবে।
অনেক বিশিষ্ট প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বই লিখেছেন এবং আপনি যে ধরণের ব্যবসায়ী নেতা হতে চান সে সম্পর্কে বিভিন্ন সহায়ক রিসোর্স থেকে জেনে নিতে পারেন।

শেষ কথা

যেকোনো সফলতা সহজেই ধরা দেয় না। আপনাকে ধাপে ধাপে পাড়ি দিতে হয়। তেমনই এক সেক্টর যেখানে আপনাকে ধৈর্য নিয়ে এগিয়ে সিইও হওয়ার যোগ্যতা হয়। সিইও হওয়ার স্বপ্ন মনে লালন করে সঠিক দিক নিদের্শনা মেনে এগিয়ে চললে সফলতা আসবেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close